Time
Bangladesh Dhaka

12:21:16 PM

Australia Sydney

5:21:16 PM

Weather
Yahoo! Weather - Sydney Regional Office, AS


Current Conditions:
Find more about Weather in Sydney Regional Office, AU
Click for weather forecast
Currency Rate

Prayer Time
  • Fajr 4:41
  • Sunrise 6:14
  • Zuhr 1:09
  • Asr 4:53
  • Maghrib 8:02
  • Ishaa 9:31
Reader Number
           
 

স্থানীয় সংবাদ

৩০ জুনের মধ্যে বাংলাদেশকে টাকা ফেরতের আশা ফিলিপিন্স সিনেটের
আদালতে মামলার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে অর্থ ফেরতের প্রক্রিয়া শুর হয়েছে ফিলিপিন্সে। সিনেট কমিটি আশা করছে, নতুন সরকার ফিলিপিন্সের দায়িত্ব নেওয়ার আগে আগামী ৩০ জুনের মধ্যেই উদ্ধারযোগ্য সব টাকা ফেরত দেওয়া যাবে। ফিলিপিন্সের বর্তমান প্রেসিডেন্ট অ্যাকুইনো আগামী ৩০ জুন ক্ষমতা ছাড়ছেন। দেশটির সিনেটের প্রেসিডেন্ট প্রো টেম্পোরে রাল্ফ রেক্টো এক বিবৃতিতে বলেছেন, এটা আমাদের জাতীয় সময়সীমা হওয়া উচিত। প্রেসিডেন্ট অ্যাকুইনো ব্যক্তিগত জীবনে যাওয়ার আগে আমাদের অবশ্যই দেখতে হবে যাতে চুরি হওয়া অর্থের মধ্যে যেগুলো উদ্ধার করা সম্ভব তা সঠিক মালিকের কাছে ফেরত গেছে। এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের আটশ কোটি ডলার চুরির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সব ব্যাংক অ্যাকাউন্টের লেনদেন ২০ দিনের জন্য গিতের নির্দেশ দিয়েছে ফিলিপিন্সের একটি আদালত। দেশটির ক্যাসিনো ব্যবসায়ী কিম অং এরইমধ্যে যে অর্থ দেশটির মুদ্রা পাচার প্রতিরোধ কাউন্সিলকে ফেরত দিয়েছেন তার একাংশও আদালতের সম্পদ জব্দের এ আদেশের আওতায় রয়েছে বলে দেশটির গণমাধ্যমের খবরে এসেছে। এছাড়া ফিলিপিন্স ন্যাশনাল ব্যাংকে (পিএনবি) অংয়ের ৪ দশমিক ৪৬ মিলিয়ন পেসোর অ্যাকাউন্ট, একই ব্যাংকে ক্যাসিনো অপারেটর ইস্টার্ন হাওয়াই লেইজার কোম্পানি লিমিটেডের ৫ দশমিক ৭৪ মিলিয়ন পেসোর অ্যাকাউন্ট এবং রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশনে (আরসিবিসি) ব্যবসায়ী উইলিয়াম গোর নামে থাকা ১৯ হাজার ৯৮৩ পেসোর অ্যাকাউন্ট জব্দের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ফিলিপিন্সের মুদ্রা পাচার প্রতিরোধ কাউন্সিল-এএমএলসি কিম অং, ইস্টার্ন হাওয়াই ও গোর বিরদ্ধে জালিয়াতির মামলা করার পর সোমবার সম্পদ জব্দের এ আদেশ দেয় আদালত। আগামী ২ মে এ বিষয়ে শুনানির দিন রাখা হয়েছে। হাতিয়ে নেওয়া বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮১ মিলিয়ন ডলারের একটা অংশ হাতে আসার কথা স্বীকার করেছেন কিম অং। তবে চুরি করে ওই অর্থ নেওয়ার বিষয়টি তার জানা ছিল না বলে দাবি করেছেন তিনি।
--------
দাবদাহে ভারতে ১০০ জনের মৃত্যু
গ্রীষ্মের শুরতেই প্রচন্ড গরমের কারণে ভারতে ১০০রও বেশি মানুষ মারা গেছেন। বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে কিছু স্কুল ও অনেক জায়গাতেই বন্ধ রয়েছে নির্মাণ কাজ। বৃহস্পতিবার সরকারি কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে এ সংবাদ দিয়েছে ইয়াহু নিউজ। পার্শ্ববর্তী দেশ পাকিস্তানে গত বছরটি ছিল গত কয়েক বছরের সবচেয়ে বেশি উষ্ণ। তবে এ বছর গরম আসার পূর্বেই প্রস্তুতি নিয়েছে দেশটি। যদি অতিরিক্ত গরম পড়ে তবে দেশটিতে ৫০০ সেন্টার খোলা হবে ঠান্ডা পানি সরবারহের জন্য। তবে এ বছর দেশটিতে এখনও গরমে কোনো মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া যায়নি। ভারতে মে এবং জুন এই দুই মাস সবচেয়ে গরম হলেও এ বছর এরই মধ্যে অনেক রাজ্যেই ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের চাইতে বেশি তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যা দায়িত্বরতদের জররি পদক্ষেপ নিতে বাধ্য করেছে। ভারতের দক্ষিণের প্রদেশ তেলেঙ্গনাতে গরমে এরই মধ্যে মারা গেছেন ৪৫ জন, অন্ধ্র প্রদেশে ১৭ জন এবং উরিষ্যাতে ৪৩ জন। তবে কর্মকর্তারা বলছেন, এসব মৃত্যু আসলেই অতিরিক্ত গরমের কারণে হয়েছে কিনা তা তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে। তেলঙ্গনার আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক ওয়াই কে রেডি বলেছেন, তেলঙ্গনার এপ্রিলের তাপমাত্রা ২০০৬ সালের পর সর্বোচ ছিল। তিনি আরও বলেন, গরমের কারণে মৃত্যু হতে পারে এমন সন্দেহের কারণে হুশিয়ারি করে বার্তা দেওয়া হয়েছে আবহাওয়া অধিদফতরের পক্ষ থেকে। গরমের কারণে এরই মধ্যে কিছু ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে জানানো হয়েছে ইয়াহু নিউজে প্রকাশিত সংবাদে।
--------
মাদক পাচারের বিশাল সুড়ঙ্গের সন্ধান
যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে মাদক পাচারে ব্যবহৃত বিশাল সুড়ঙ্গের সন্ধান মিলেছে। আট শ মিটার দীর্ঘ নজিরবিহীন ওই গোপন পথ দিয়ে কোকেন ও গাঁজা পাচার করা হতো। খবর বিবিসি অনলাইনের। যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় কর্মকর্তারা বলছেন, ২০০৬ সাল থেকে মেক্সিকো-ক্যালিফোর্নিয়া সীমান্তে এ নিয়ে ১৩তম গোপন সুড়ঙ্গের সন্ধান পাওয়া গেল। নতুন পাওয়া এই সুড়ঙ্গের গভীরতা ৪৬ ফুট। এটা মেক্সিকোর সীমান্তবর্তী তাইজুয়ানা শহরের একটি বাড়ির লিফটের নিচের গর্তের সঙ্গে যুক্ত ছিল ওই সুড়ঙ্গ। আর যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ওই সুড়ঙ্গের মুখ আবর্জনার পাত্র দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছিল। সম্প্রতি ক্যালিফোর্নিয়ার সান ডিয়েগোতে এক হাজার ১৬ কেজি কোকেন ও ছয় হাজার ৩৫০ কেজি গাঁজা উদ্ধার হয়। স্থানীয় কর্মকর্তারা সন্দেহ করছেন, ওই সুড়ঙ্গ পথেই সেগুলো আনা হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের সান ডিয়েগোতে ওই সুড়ঙ্গের মুখ একটি সাধারণ গর্তের আকার করে ময়লার ফেলার পাত্র দিয়ে ঢেকে রাখা হতো। ছবি: এএফপিদক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়া ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি লরা ডাফি বলেছেন, সেটাই ছিল এ পর্যন্ত আটক করা কোকেনের সবচেয়ে বড় চালান। ডাফি বলেন, পাচারকারীরা ময়লার পাত্রের ভেতর মাদক রাখত এবং ময়লার পাত্র নিয়ে গিয়ে বিভিন্ন জায়গায় তা সরবরাহ করা হতো। সম্প্রতি সান ডিয়েগোর নিরাপত্তা কর্মকর্তারা একটি ট্রাক অনুসরণ করে। সেই ট্রাক আবর্জনার পাত্র নিয়ে যাচ্ছিল। এক সময় সান ডিয়েগোর কর্মকর্তারা ট্রাকটি থামিয়ে তল্লাশি চালায়। সেই ট্রাক থেকে মাদক জব্দ করা হয় ও তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে গ্রেপ্তার করা হয় আরও তিনজনকে। তাদের দেওয়া তথ্যমতে ওই সুড়ঙ্গের সন্ধান পাওয়া যায়। দ্য লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমসের খবরে বলা হয়, ওই সুড়ঙ্গের ভেতর বায়ু চলাচল ও আলোর ব্যবস্থা আছে। গত মার্চে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ মেক্সিকোর একটি রেস্টুরেন্ট থেকে ক্যালিফোর্নিয়ার একটি বাড়ি পর্যন্ত ৩৮০ মিটার সুড়ঙ্গ খুঁজে পেয়েছিল।
--------
বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি এখনও উদ্বেগের পর্যায়ে: যুক্তরাজ্য
বিশ্বের যে ৩০টি দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি উদ্বেগের পর্যায়ে রয়েছে বলে যুক্তরাজ্য মনে করছে, তার মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশও,বৈশ্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তরের বার্ষিক প্রতিবেদনে এই চিত্র দেখা যায়। ২০১৫ সাল নিয়ে তৈরি প্রতিবেদনটি বৃহস্পতিবার প্রকাশ করা হয়েছে। এতে বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার আফগানিস্তান, পাকিস্তান, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কার মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। এই ৩০টি দেশের মধ্যে মিসর, ইরাক, ইরান, কঙ্গো, সিরিয়া, ইয়েমেন, ফিলিস্থিনি, ইসরায়েল, সুদানের সঙ্গে চীন ও মিয়ানমারের নামও রয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৫ সালে বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতির কোনো উন্নতি ঘটেনি আগের বছরের চেয়ে। এক্ষেত্রে দুই প্রধান রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দ্বন্দ্ব অবসান না ঘটার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়।
--------
 
 

আন্তর্জাতিক সংবাদ

রমজানে ১৭৫টি ট্রাকে পণ্য বেচবে টিসিবি
রমজান উপলক্ষে দেশের ১৭৫টি উপজেলায় নিজস্ব ডিলারের মাধ্যমে খোলা ট্রাকে পণ্য বিক্রি করবে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। রমজান মাসে ভোক্তাদের দুর্ভোগ কমাতে ও বাড়তি চাহিদা মেটাতে টিসিবি আগে থেকেই প্রস্তুতি নিতে শুর করেছে। টিসিবি সূত্রে জানা যায়, সারা দেশে ১৭৫টি উপজেলায় টিসিবির পণ্য বিক্রির জন্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন চাওয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পেলে প্রথম রমজান থেকে খোলা ট্রাকে পণ্য বিক্রির জন্য উপজেলাগুলো নির্ধারিত হবে। পাশাপাশি দামও নির্ধারণ করা হবে। টিসিবি সূত্রে জানা যায়, টিসিবির হাতে পর্যাপ্ত পণ্য মজুত রয়েছে। এই নিয়মিত মজুতের পাশাপাশি রমজান উপলক্ষে ইতিমধ্যে অপরিশোধিত সয়াবিন, অপরিশোধিত পাম অয়েল, মসুর ডাল, ছোলা ও খেজুর আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে টিসিবি। রমজান উপলক্ষে এ পাঁচটি পণ্য ানীয় বাজার ও আন্তর্জাতিক বাজার থেকে সংগ্রহ করা হবে। রমজানের আগেই এসব পণ্য মজুত করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছে টিসিবি সূত্র। উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে টিসিবি সরকারের নীতি অনুযায়ী নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী আমদানি করে থাকে। এ ছাড়া বেশ কিছু দায়িত্ব পালনের সঙ্গে সঙ্গে বাজারে দ্রব্যমূল্য মনিটর করার পাশাপাশি আমদানি করা পণ্য বিক্রয় ও বিতরণের জন্য ডিলার বা এজেন্ট নিয়োগ দিয়ে থাকে।
--------
ফেসবুক ব্যবহারকারী পাবে টাকা, কিভাবে জেনে নিন!
বিশ্বের সোশ্যাল মিডিয়ার শীর্ষ স্থানীয় নাম ফেসবুক। আর প্রতি সেকেন্ডএ কোটি কোটি ইউজার প্রবেশ করছেন এই ফেসবুকে। প্রতিনিয়ত যে কোন পোস্টে লাইক, কমেন্ট, আর সেয়ার করছে সেকেন্ডের মধ্যেই। আর এবার ফেসবুক প্রতিষ্ঠান চিন্তা করেছে ইউজারদের ইনকামের এক নতুন পন্থা। পাঠক আসুন জেনে নেওয়া যাক ফেসবুক কি ভাবে আপনাকে টাকা ইনকাম করার পথ তৈরি করে দিবে। আপনি কি ফেসবুক-এ পোস্ট করেন? কিন্তু পোস্ট করার পরে লাইক, কমেন্ট ছাড়াও যদি টাকা পান, কেমন লাগবে? ভবিষ্যতে ফেসবুক ইউজারদের জন্য এমন অভিনব সুবিধেই আনতে চলেছে এই সোশ্যাল মিডিয়া। সম্প্রতি নিজেদের ইউজারদের নিয়ে করা একটি সমীক্ষা করে ফেসবুক। সেই সমীক্ষায় ফেসবুক ব্যবহার করে কীভাবে ফেসবুক ইউজাররা আয় করতে পারেন তা নিয়ে একাধিক পরামর্শ উঠে এসেছে। তার মধ্যে অন্যতম হল, বিজ্ঞাপন থেকে সংগৃহীত অর্থের একাংশ নিজেদের ইউজারকে দেবে ফেসবুক। কিন্তু, এই সুবিধে ফেসবুক সব ইউজারকেই দেবে, না কি শুধু ভেরিফায়েড ইউজার-দের জন্য চালু করবে, সে বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু জানানো হয়নি। ফেসবুক-এর তরফে এক মুখপাত্রও জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে ফেসবুক ব্যবহারকে আর্থিক দিক থেকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলার লক্ষ্যে সংস্থার একাধিক পরিকল্পনা রয়েছে।
--------
বাংলাদেশে নির্বাচন নিয়ে সব দলকে কাজ করার আহ্বান যুক্তরাজ্যের
বাংলাদেশে নির্বাচন নিয়ে সব দলকে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাজ্য বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের সরকারি ওয়েবসাইটে বার্ষিক মানবাধিকার বিষয়ক প্রতিবেদনে এ আহবান জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে ২০১৫ সালে সার্বিক মানবাধিকার পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হয়নি। প্রধান দুই দল আওয়ামী লীগ ও জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মধ্যে উত্তেজনা প্রশমিত হয়নি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৫ সালের প্রথম তিন মাস বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাদের গ্রেপ্তার, পরিবহন ধর্মঘট এবং লাগাতার হরতালসহ নানা বিষয়ে এই দুই দল মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছিল। জনগণের নিরাপত্তা ও জীবিকার ওপর এর প্রভাব পড়ে। ৩০ ডিসেম্বর প্রথমবারের মতো অপেক্ষাকৃত শান্তিপূর্ণ ও অংশগ্রহণমূলক পৌর নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। রাজনৈতিক পরিস্থিতির জন্য এটি ইতিবাচক উন্নতি। ২০১৫ সালে চরমপন্থীরা কয়েকজন সেক্যুলার লেখক ও সংখ্যালুঘুর ওপর হামলা চালিয়েছে। বাক স্বাধীনতার ওপর চাপ বৃদ্ধি পেয়েছিল। মানবাধিকার ও গণতন্ত্র কর্মসূচির মাধ্যমে যুক্তরাজ্য বাংলাদেশে ব্লগারদের নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ দিয়েছে এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন ২০০৬-এর পর্যালোচনাকে আন্তর্জাতিক মানের করতে সহযোগিতা করেছে। বিলম্বিত বিচার প্রক্রিয়ার কারণে জনগণ আইন নিজের হাতে তুলে নিয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে আরো বলা হয়েছে, বেসরকারি সংস্থাগুলোর দেওয়া তথ্যানুয়ায়ী, যেখানে আইনে সবোর্চ শাস্তি মৃত্যুদ- রয়েছে সেখানে অতিরিক্ত বলপ্রয়োগ, বিচারবহির্ভূত হত্যাকা-, গুমের মতো ঘটনা ঘটেছে। ২০১৫ সালে তিন যুদ্ধাপরাধীসহ কমপক্ষে পাঁচ ব্যক্তির মৃত্যুদ- কার্যকর করা হয়েছে। বেসরকারি সংস্থাগুলো আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের (আইসিটি) বিচার প্রক্রিয়া নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ অব্যাহত রেখেছে। আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিভাগ বাংলাদেশে বিচার খাতের সংস্কারের জন্য ৩৭ লাখ পাউন্ড (চার হাজার ২১৮ লাখ টাকা) এবং পুলিশ বিভাগের সংস্কার কর্মসূচির জন্য ১২ লাখ পাউন্ড (এক হাজার ৩৬৮ লাখ টাকা) দিয়েছে। প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, আমরা আবারো স্পষ্টভাবে বলছি, কার্যকর বিচার ব্যবস্থা, স্পন্দনশীল সুশীল সমাজ ও মুক্ত গণমাধ্যম, চ্যালেঞ্জ ও জবাবদিহিতা দিতে সক্ষম কর্তৃপক্ষ একটি সফল গণতন্ত্রের মৌলিক উপাদান। অবাধ, স্বছ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনও গুরুত্বপূর্ণ; ২০১৯ সালের নির্বাচনে সেই লক্ষ্য অর্জনে সব রাজনৈতিক দলকে কাজ করতে উৎসাহিত করছি। নারীদের অগ্রগতির কথা উল্লেখ করে প্রতিবেদন বলা হয়, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে নারীরা উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছে। অনেকে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও তৈরি পোশাক কারখানায় কাজ করছে। তারপরও নারীরা এখনো পুরুষের মতো সামাজিক অবস্থান উপভোগ করতে পারছে না। লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা এখনো উল্লেখযোগ্য সমস্যা। বাল্যবিবাহ এখনো উদ্বেগের বিষয়। বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনীতির প্রশংসা করা হয় প্রতিবেদনে। বলা হয়, বাংলাদেশের রয়েছে ক্রমবর্ধমান অর্থনীতি এবং ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার উচাকাঙক্ষা। ২০১৬ সাল ও এরপর একটি ইতিবাচক মানবাধিকার গতিপথের নিশ্চয়তা দেওয়ার ব্যাপারে আমরা বাংলাদেশ সরকারকে উৎসাহিত করছি। আমরা বাংলাদেশ সরকারকে আগামী অক্টোবরে জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিটির সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে উৎসাহিত করব।
--------
 
";