Time
Bangladesh Dhaka

12:21:16 PM

Australia Sydney

5:21:16 PM

Weather
Yahoo! Weather - Sydney Regional Office, AS


Current Conditions:
Find more about Weather in Sydney Regional Office, AU
Click for weather forecast
Currency Rate

Prayer Time
  • Fajr 4:41
  • Sunrise 6:14
  • Zuhr 1:09
  • Asr 4:53
  • Maghrib 8:02
  • Ishaa 9:31
Reader Number
           
 

স্থানীয় সংবাদ

টিআর-কাবিখায় চাল-গম নয়, নগদ চান এমপিরা
চাল ও গমের বিনিময়ে স্থানীয় পর্যায়ে উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা থেকে সরে এসে এসব কর্মসূচিতে নগদ অর্থ বরাদ্দ করতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন কয়েকজন সংসদ সদস্য। বুধবার সংসদ অধিবেশনে সরকারি দলের হুইপ আতিউর রহমান আতিকসহ কয়েকজন সংসদ সদস্য এই দাবি তুললে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে তাদের আশ্বস্ত করেন। টিআর ও কাবিখা কর্মসূচিতে নগদ টাকা দেওয়ার জন্য অর্থমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী ও খাদ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আমরা অর্থমন্ত্রীকে বোঝাতে সক্ষম হয়েছি। এ বিষয়ে আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রস্তাব পাঠিয়েছি। আশা করি, প্রধানমন্ত্রী বিবেচনা করে এটা বাস্তবায়ন করবেন। টেস্ট রিলিফ (টিআর) এবং কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) কর্মসূচির মাধ্যমে স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করা হয়। এতে কাজের মজুরি হিসেবে চাল ও গম দেওয়া হয়। গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন ও দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত কাঠামো মেরামতের জন্য চালানো কাবিখা কর্মসূচির উদ্দেশ্য হচ্ছে কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও গরিব মানুষের আয় বাড়ানো, দেশের সব এলাকায় খাদ্য সরবরাহের ভারসাম্য এনে দারিদ্র্য বিমোচনে ইতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি। টিআর কর্মসূচির অধীনে শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান মেরামতের মাধ্যমে দুর্বল ও দরিদ্র জনগণের কর্মসংস্থান সৃষ্টির সঙ্গে জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা বিধানে সহায়তা সরকারের লক্ষ্য। এসব কাজে আইনপ্রণেতা অর্থাৎ সংসদ সদস্যদের অংশগ্রহণের সুযোগ না থাকলেও তারা বরাবরই হস্তক্ষেপ করেন বলে স্থানীয় সরকারের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের অভিযোগ। উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌর চেয়ারম্যান, ইউপি চেয়ারম্যানদের অভিযোগ, নির্বাচনী এলাকায় উন্নয়নের জন্য সংসদ সদস্যদের বরাদ্দ থাকার পরও তারা তাদের বরাদ্দে ভাগ বসান। সংসদ সদস্যদের এই ধরনের হস্তক্ষেপ বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা শক্তিশালী হওয়ার পথে অন্তরায় বলে বিশ্লেষকরা চিহ্নিত করেছেন। এর বিপরীতে সংসদ সদস্যরা বলে আসছেন, এলাকায় উন্নয়ন কাজ ঠিকভাবে না হলে তার জন্য জনগণের কাছে তাদেরই জবাবদিহি করতে হয়। বুধবার সংসদ অধিবেশনে কাবিখা ও টিআর নিয়ে প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে মন্ত্রী মায়াও বলেন, এজন্য সংসদ সদস্যসহ আমাদের প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়। এই দুই প্রকল্পে নগদ অর্থ দেওয়ার দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করে তিনি বলেন, টিআর-কাবিখায় যে গম বা চাল দেওয়া হয়, তা বিক্রি করে ন্যায্য অর্থ পাওয়া যায় না। এগুলো বিক্রি করলে (প্রতি টন) ১৪ থেকে ২০ হাজার টাকা পাওয়া যায়। অথচ ভাউচার দিতে হয় ৩৬ হাজার টাকার। টিআর আর কাবিখা টাকায় প্রদান করা গেলে কাজের পরিমাণ দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। গম বা চাল দিলে যেখানে আমরা ১৬ হাজার টাকার কাজ করতে পারি সেখানে টাকা দেওয়া গেলে পুরো ৩৬ হাজার টাকা কাজে লাগানো যাবে।
--------
বদলে যেতে পারে মার্কিন রাজনীতি
১ ফেব্রয়ারি আইওয়া অঙ্গরাজ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের সমর্থকেরা যাঁর যাঁর দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীর প্রাথমিক নির্বাচন সম্পন্ন করবেন। অধিকাংশ দেশে দলের কর্তাব্যক্তিরাই ঠিক করেন, কে সে দলের পক্ষে নির্বাচনে পদপ্রার্থী হবেন। আমেরিকায় সে অধিকার দলের তালিকাভুক্ত সদস্যদের। ককাস ও প্রাইমারি নামে পরিচিত প্রাক্-নির্বাচনী ভোটের মাধ্যমে তাঁরা নিজেদের ডেলিগেট বাছাই সম্পন্ন করবেন। এ বছর জুলাই মাসে দুই দলের ভিন্ন ভিন্ন জাতীয় সম্মেলনে এই ডেলিগেটদের ভোটেই দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে। দেশের প্রতিটি অঙ্গরাজ্যেই এই প্রাক্-নির্বাচনী ভোট হবে, আইওয়া দিয়ে সে প্রক্রিয়া শুরু, সে কারণে আইওয়া ককাসের এত গুরুত্ব। মোট ডেলিগেটের মাত্র ১ শতাংশ আইওয়া ককাসে নির্ধারিত হবেরিপাবলিকানদের ৩০ ও ডেমোক্র্যাটদের ২৯ জন। তা সত্ত্বেও সবার চোখ এখন আইওয়ার দিকে। এবারের নির্বাচনে এখন পর্যন্ত যাঁরা জনমত গণনায় এগিয়ে আছেন, তাঁরা কেউই দলের কর্তাব্যক্তিদের পছন্দের নয়। রিপাবলিকানদের মধ্যে বিলিয়নিয়ার ক্যাসিনো ব্যবসায়ী ডোনাল্ড ট্রাম্প সব হিসাব উল্টে দিয়ে এক নম্বরে রয়েছেন। দলের নেতাদের বিশ্বাস, এই লোক যদি শেষ পর্যন্ত দলের মনোনয়ন পান, তাহলে নভেম্বরের জাতীয় নির্বাচনে রিপাবলিকানদের ভরাডুবি ঠেকানো অসম্ভব হবে। ট্রাম্প শুধু যে হিস্পানিক ও মুসলিম অভিবাসীদের খেপিয়ে তুলেছেন তা-ই নয়, দলের সব প্রচলিত নীতি-আদর্শের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। ব্যাপারটা রিপাবলিকানদের জন্য এতটাই উদ্বেগজনক যে এ দেশের অন্যতম প্রধান রক্ষণশীল পত্রিকা, ন্যাশনাল রিভিউতে দেশের ২১ জন নামজাদা বুদ্ধিজীবী একযোগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এই শিরোনামে প্রবন্ধ লিখে যেভাবে হোক এই ভুঁইফোড় রাজনীতিককে ঠেকানোর আবেদন করেছেন।বার্নি স্যান্ডার্স জনপ্রিয়তায় ট্রাম্পকে যিনি ছুঁইছুঁই করছেন, টেক্সাস থেকে নির্বাচিত সিনেটর টেড ক্রুজ, নিজের দলের নেতৃত্বের বিরুদ্ধে তাঁর নাটকীয় ভূমিকার জন্য খ্যাতি অথবা কুখ্যাতি অর্জন করেছেন। মূলধারার সম্পূর্ণ বাইরের এই রাজনীতিক আশা করছেন, অতি রক্ষণশীল ও কট্টর খ্রিষ্টান ইভানজেলিক্যালদের ভোটে তরি তীরে ভেড়াতে সক্ষম হবেন। সবাই একমত, ট্রাম্পের মতো ক্রুজও দেশের সংখ্যালঘু ও মধ্যপন্থীদের আকর্ষণ করতে ব্যর্থ হবেন। রিপাবলিকান নেতারা আশা করেছিলেন, হয় ফ্লোরিডার সাবেক গভর্নর জেব বুশ অথবা একই অঙ্গরাজ্যের তরুণ সিনেটর কিউবান বংশোদ্ভূত মার্কো রুবিও মনোনয়ন ছিনিয়ে নেবেন। তাঁরা দুজনেই যাঁর যাঁর নির্বাচনী তহবিলে মোটা অঙ্কের চাঁদা পেয়েছিলেন, তাঁদের পক্ষে নামজাদা রাজনীতিকেরা সমর্থন জানিয়েছেন। কিন্তু ট্রাম্পের অতিনাটকীয়তা ও ক্রুজের অতিতপ্ত প্রচারণার মুখে তাঁরা দুজনেই কার্যত মুখ থুবড়ে পড়ে আছেন। ডেমোক্রেটিক দলের পক্ষে অবস্থা একই রকম জটিল ও অবাস্তব। তিন মাস আগেও সবাই নিশ্চিত ছিলেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন বিপুল জনসমর্থনে ধন্য হয়ে নিজ দলের মনোনয়ন হেলায় ছিনিয়ে নেবেন। কিন্তু বাস্তবে সে কথা সত্য প্রমাণিত হয়নি। সারা দেশে হিলারির সমর্থন ৫০ শতাংশের ঊর্ধ্বে ওঠেনি। ডোনাল্ড ট্রাম্পহিলারিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন ভারমন্ট থেকে নির্বাচিত স্বতন্ত্র সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স। প্রায় ৭৫ বছর বয়স্ক এই রাজনীতিক নিজেকে কোনো রাখঢাক ছাড়াই গণতান্ত্রিক সমাজতান্ত্রিক হিসেবে পরিচয় করাতে ভালোবাসেন। তাঁর সমর্থনের একটি পরিমাপক হলো, এ পর্যন্ত তাঁর পক্ষে স্বেচ্ছায় চাঁদা দিয়েছেন, তাঁদের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এই সংখ্যা চার বছর আগে ওবামা যে সংখ্যায় চাঁদা পেয়েছিলেন, তার চেয়ে ১০ লাখেরও বেশি। গড়ে মাত্র ২৭ ডলার চাঁদা পেয়ে গত বছরের শেষে তাঁর প্রাপ্ত মোট চাঁদার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৭৩ মিলিয়ন ডলার। মজার ব্যাপার হলো, ট্রাম্প ও স্যান্ডার্সকে যাঁরা সমর্থন করছেন, তাঁদের মধ্যে আশ্চর্য মিল রয়েছে। ট্রাম্পের বেলায় তাঁর সমর্থকদের অধিকাংশই শ্বেতকায়, মাঝবয়সী ও স্বল্পশিক্ষিত। অব্যাহত অভিবাসনের কারণে ও মন্দাবস্থার দরুন এঁরা নিজের সরকার ও দলের রাজনীতিকদের ওপর খেপে আছেন। আমেরিকান ড্রিম তাঁদের ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যাচ্ছে, এ জন্য তাঁরা ওয়াশিংটনের রাজনীতিকদের দায়ী করছেন। আরও লক্ষণীয়, কৃষ্ণকায় ওবামাকে তাঁরা সাত বছর পরও প্রেসিডেন্ট হিসেবে গ্রহণ করতে পারেননি। টেড ক্রুজঅন্যদিকে, চার বছর আগে যে অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট আন্দোলন শুরু হয়েছিল, যার প্রভাবে ওবামা দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচিত হতে পেরেছিলেন, বার্নি স্যান্ডার্স সেই সমর্থন-ভিতকে নিজের পক্ষে টানতে পেরেছেন। তাঁর কারণেই হিলারি ক্লিনটনকে অবস্থান বদলে বামমুখী হতে হয়েছে। যেমন, তিনি বরাবর আন্তপ্রশান্ত মহাসাগরীয় বাণিজ্য চুক্তির পক্ষে ওকালতি করেছেন, কিন্তু অতি সম্প্রতি সুর বদলে স্যান্ডার্সের দেখাদেখি সে চুক্তির বিরোধিতার কথা ঘোষণা করেছেন। এ কথার অর্থ অবশ্য এই নয়, বার্নি স্যান্ডার্স বা ডোনাল্ড ট্রাম্পই যাঁর যাঁর দলের মনোনয়ন লাভ করবেন। জনসমর্থনে জাতীয়ভাবে স্যান্ডার্সের তুলনায় হিলারি প্রায় ২০ শতাংশ এগিয়ে আছেন। কিন্তু আইওয়া এবং ঠিক তারপরেই নিউ হ্যাম্পশায়ারে তিনি যদি পর্যুদস্ত হন, তাঁর নির্বাচনযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। ২০০৮ সালে অনিবার্য বিজয়ের মুখ থেকে তিনি ওবামার কাছে পর্যুদস্ত হয়েছিলেন। তবে স্যান্ডার্সের সমর্থন-চক্র অপেক্ষাকৃত ক্ষুদ্র হওয়ায় ও সংখ্যালঘুদের নিজেদের পক্ষে টানতে অসমর্থ হওয়ায় চূড়ান্ত পর্যায়ে তাঁর বিজয়ের সম্ভাবনা কম। তবে এ অবস্থা যে বদলাবে না, এ কথা বলা বোকামি।
--------
জাতিসংঘে বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির বোর্ড সদস্য হলো বাংলাদেশ
জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির নির্বাহী বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশ। নিউ ইয়র্কের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ভোটগ্রহণের মাধ্যমে এবং সকল সদস্য রাষ্ট্রের সম্মতিক্রমে আগামী তিন বছরের জন্য বাংলাদেশ ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম (ডব্লিউএফপি) বা বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির সদস্য নির্বাচিত হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বলেন, বিগত সাত বছরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ কৃষি ও খাদ্য উৎপাদনে ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছে। এ সাফল্য বাংলাদেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতার একটি অংশ। ২০০৯ সাল থেকে কৃষি উন্নয়নমুখী ব্যাপক কর্মকাণ্ড বাস্তবায়নের ফলে জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও কৃষিজমি হ্রাস সত্ত্বেও বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। মাসুদ বিন মোমেন আরো বলেন, দেশ চাল রপ্তানি শুরু করেছে। অন্যান্য কৃষিপণ্য রপ্তানি প্রতিবছরই বাড়ছে। কৃষিভিত্তিক শিল্প গড়ে উঠেছে। বর্তমানে খাদ্যশস্য উৎপাদন প্রায় চার কোটি টনে পৌঁছেছে। জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়েছে। গ্রামীণ দারিদ্র্য ব্যাপকভাবে হ্রাস পেয়েছে। বাংলাদেশ জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির নির্বাহী বোর্ডের সদস্য নির্বাচিত হওয়ায় তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।
--------
আটলান্টিক মহাসাগরের নিচে জাদুঘর
সমুদ্রের নিচে এবার দেখতে পাওয়া যাবে জাদুঘর। এই জাদুঘর তৈরি করছে স্পেন। আটলান্টিক মহাসাগরের মধ্যে ক্যানারি দ্বীপপুঞ্জের অন্যতম লানযারোতের উপকূলের কাছে এটাই হবে ইউরোপের প্রথম জাদুঘর, যার ঠিকানা হবে গভীর সমুদ্র। সমুদ্রের গভীরে এখন জাদুঘর তৈরির কাজ চলছে জোরকদমে। সমুদ্রের প্রায় ১৫ মিটার গভীরে ৩০০ ভাস্কর্য স্থাপনের কাজও এখন প্রায় শেষের মুখে। অনবদ্য এই কাজ করছেন জেসন দ্য-কেয়ারস নামে একজন শিল্পী। মূর্তিগুলোর সবই লানযারোতের বর্তমান বাসিন্দাদের। তাঁদের নিত্যদিনের কর্মকাণ্ডের ওপর এই ভাস্কর্যগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। সূত্রের খবর অনুযায়ী যেসব পদার্থ এই ভাস্কর্য তৈরির কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে, তাতে সামুদ্রিক জীবের এবং সমুদ্রের জলের কোনও ক্ষতি হবে না। শুধু তাই নয়, জলের নিচে এই ভাস্কর্য টিকে থাকবে প্রায় তিনশো বছর, এমনটাও দাবি করা হচ্ছে। অভিনব এই জাদুঘর দেখতে হলে ডুবুরির পোশাক পড়ে, পিঠে অক্সিজেনের টিউব নিয়ে সাগরতলে নামতে হবে। এই জাদুঘর যে পর্যটকদের নজর কাড়বে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।
--------
 
 

আন্তর্জাতিক সংবাদ

অবশেষে টপ সিক্রেট ২২টি ই-মেইল নিয়ে মুখ খুললেন হিলারি
অবশেষে ২২টি টপ সিক্রেট ই-মেইল নিয়ে মুখ খুললেন যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী প্রেসিডেন্টপ্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। সোমবার আইওয়া অঙ্গরাজ্যে ককাস শুরু হওয়ার আগেই তাঁর গোপন ই-মেইল সম্পর্কে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যেসব মেইল প্রকাশ করা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন এসব ই-মেইলের বেশির ভাগই ছিল মূলত বেনগাছি সম্পর্কিত। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা বাংলা প্রেস। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালনের সময় ২০১২ সালে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা নিয়ে বেনগাছি নিয়ে নানা কথাবার্তা হয়েছিল ওসব ই- মেইলে। তিনি বলেন, এ বিষয়টি রিপাবলিকানরা সব সময় আমাকে খোটা দিয়ে আসছে। আশা করি আজ থেকে এ বিষয়টি পরিস্কার হবে। আইওয়া রাজ্যে প্রেসিডেন্ট পদে দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে ভোটাভুটির একদিন আগে গুরুত্বপূর্ণ এ বিষয় নিয়ে মুখ খুললেন হিলারি। এর আগে রাষ্ট্রীয় গোপনীয় তথ্য থাকায় এগুলো প্রকাশে নিষেধাজ্ঞা আরোপের কথাও জানান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র। উল্লেখ্য, প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রথম মেয়াদে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন হিলারি ক্লিনটন। রাষ্ট্রীয় গোপন তথ্য হিলারি ক্লিনটনের ই-মেইলে থাকার বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রকাশের পর থেকে এ নিয়ে ব্যাপক হৈচৈ পড়ে যায় যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে। হিলারির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গোপনেরও অভিযোগ তোলেন বিরোধী রিপাবলিকান পার্টি থেকে প্রেসিডেন্ট পদে মনোনয়নপ্রত্যাশী এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এ বিতর্কে হিলারির দলীয় মনোনয়ন পাওয়ায় সমর্থন পাওয়া কঠিন হয়ে উঠবে বলে বলছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।
--------
মিয়ানমারে ৫০ বছর পর নির্বাচিত সংসদ
মিয়ানমারে ৫০ বছরের বেশি সময় পর গণতান্ত্রিক সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতায় যাচ্ছে। আজ বসছে দেশটির নতুন নির্বাচিত সরকারের প্রথম সংসদ। আজ মিয়ানমারের নতুন সংসদের প্রথম কাজ হবে নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করা। মিয়ানমারে গত নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে অং সাং সু চির নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) ৮০ শতাংশ আসনে জয়লাভ করে। তবে ওই নির্বাচনে সামরিক জান্তারা এক-চতুর্থাংশ আসন দখল করে।দেশটির সংবিধান অনুযায়ী, তারাও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকবে। দেশটির প্রেসিডেন্ট থেইন সেইন আগামী মার্চের শেষে ক্ষমতা থেকে সরবেন। তবে সু চি ব্রিটিশ নাগরিক হওয়ায় প্রেসিডেন্ট হতে তাঁর সংবিধানিক বাধা আছে। ফলে ১৫ বছর ধরে গৃহবন্দি থাকা সু চি এখন নতুন নেতার মাধ্যমে নিজের প্রভাব ধরে রাখতে চেষ্টা করবেন।খবর বিবিসির।
--------
বিনা মূল্যে প্রশিক্ষণ পাবে ১০ হাজার বেকার, সঙ্গে ভাতা
জাহাজ নির্মাণশিল্পে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের স্কিলস ফর এমপ্লয়মেন্ট ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রামের (এসইআইপি) আর্থিক সহযোগিতায়। প্রশিক্ষণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে রপ্তানিমুখী জাহাজ নির্মাণশিল্প মালিক সমিতি। মোট তিন বছরে এই প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রথম বছরে দুই হাজার, দ্বিতীয় বছরে সাড়ে পাঁচ হাজার এবং তৃতীয় বছরে প্রশিক্ষণ পাবেন আড়াই হাজার জন। এর মধ্যে নতুন আসা বা অদক্ষ ছয় হাজার ৫৪৫ জন এবং এ শিল্পের বিভিন্ন শাখায় কর্মরত আধা দক্ষ তিন হাজার ৪৫৫ জনকে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে তোলা হবে। কেন এই প্রশিক্ষণ রপ্তানিমুখী জাহাজ নির্মাণশিল্প মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, বাংলাদেশ জাহাজ নির্মাণ ও রপ্তানির ব্যাপক সম্ভাবনাময় একটি দেশ। আমাদের তৈরি জাহাজ বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে। দিনে দিনে এ খাত সম্প্রসারিত হচ্ছে, বাড়ছে দক্ষ কর্মীর চাহিদা। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে এ খাতের দক্ষ জনশক্তি বড় অবদান রাখবে। দেশে যুবকদের বড় একটি অংশ বেকার। যারা এ শিল্পে কাজ করতে চায় তাদের আমরা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ কর্মী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। প্রশিক্ষণের বিষয় ১০টি বিষয়ে দেওয়া হবে প্রশিক্ষণ। বিষয়গুলো হলো ওয়েল্ডিং অ্যান্ড ফেব্রিকেশন, মেশিন টুলস অপারেশন, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড নেভিগেশন ইক্যুইপমেন্ট ইনস্টলেশন, পাইপিং, মেশিনারি ইনস্টলেশন, এইচবিএসি ইনস্টলেশন টেকনোলজি, পেইন্টিং, সিএনসি অপারেশন, ক্যাড অ্যান্ড ক্যাম এবং কোয়ালিটি কন্ট্রোল। অদক্ষরা পাবে তিন মাসের প্রশিক্ষণ। আধা দক্ষদের প্রশিক্ষণ কোর্সের মেয়াদ ১৫ দিন। যোগ্যতা ও বাছাই প্রক্রিয়া এসইআইপির চিফ কো-অর্ডিনেটর ক্যাপ্টেন মো. হাবিবুর রহমান জানান, প্রাথমিকভাবে তিনটি বিষয় নিয়ে শুরু হবে প্রশিক্ষণ। অষ্টম শ্রেণি পাস হলেই আবেদন করা যাবে ওয়েল্ডিং অ্যান্ড ফেব্রিকেশন বিষয়ে। মেশিন টুলস অপারেশন ও ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড নেভিগেশন ইক্যুইপমেন্ট ইনস্টলেশনের জন্য যোগ্যতা এসএসসি। পাইপিং, মেশিনারি ইনস্টলেশন, এইচবিএসি ইনস্টলেশন টেকনোলজি, পেইন্টিং, সিএনসি অপারেশন, ক্যাড অ্যান্ড ক্যাম এবং কোয়ালিটি কন্ট্রোল কোর্স শুরু হবে আগামী ছয় মাসের মধ্যে। অদক্ষ প্রার্থীদের বয়সসীমা ১৮ থেকে ৩০ বছর, আধাদক্ষদের ২০ থেকে ৪৫ বছর। প্রতি ব্যাচে নেওয়া হবে ৩০ জন। যোগ্যতা থাকলে মহিলারাও পছন্দমতো কোনো কোর্সে অংশ নিতে পারবেন। প্রশিক্ষণার্থী নির্বাচনের সময় প্রার্থীর এ শিল্পে কাজ করার মানসিকতা, শারীরিক যোগ্যতা, বয়স ও শিক্ষাগত যোগ্যতা ইত্যাদি দেখা হবে। আবেদন যেভাবে শিগগিরই পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশ করবে কর্তৃপক্ষ। কোন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের জন্য কতজন প্রার্থী নেওয়া হবে, তাও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ থাকবে। প্রথম কোর্স শুরু হবে এ মাসেই। আবেদন করতে হবে নির্ধারিত ফরমে। আবেদন ফরম পাওয়া যাবে প্রশিক্ষণ পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানে। আবেদনের সঙ্গে জমা দিতে হবে শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদের ফটোকপি, দুই কপি ছবি ও জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি। ভোকেশনাল বা টেকনিক্যাল শাখায় কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে সংশ্লিষ্ট সনদপত্রও জমা দিতে হবে। প্রশিক্ষণ পদ্ধতি অদক্ষ প্রার্থীদের দক্ষ করে গড়ে তুলতে ব্যবহারিক ও তত্ত্বীয় দুই ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। শিপবিল্ডিং সংশ্লিষ্ট দক্ষ প্রশিক্ষকরা প্রশিক্ষণ দেবেন। নতুনদের বেলায় কোর্সের শুরুতে ১০ থেকে ১৫ দিন তত্ত্বীয় ক্লাস নেওয়া হবে। ব্যবহারিক ক্লাস নেওয়া হবে শিপ নির্মাণ কারখানায়। ব্যবহারিক ক্লাসের সময় বিভিন্ন যন্ত্রপাতির সাহায্যে হাতে-কলমে কাজ শেখানো হবে। আধাদক্ষদেরও সরাসরি কারখানায় কাজ শেখানো হবে। প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে সপ্তাহে পাঁচ দিন। প্রতিটি ক্লাসের সময়সীমা পাঁচ ঘণ্টা। মিলবে ভাতা ও সনদ প্রশিক্ষণের জন্য কোনো কোর্স ফি দিতে হবে না; বরং পাওয়া যাবে ভাতা। তিন মাস-মেয়াদি সব কোর্সে প্রতি মাসে তিন হাজার করে মোট ৯ হাজার টাকা ভাতা দেওয়া হবে। দুই সপ্তাহ-মেয়াদি কোর্সে দেওয়া হবে দুই হাজার ৫০০ টাকা। তিন মাস-মেয়াদি প্রশিক্ষণের জন্য প্রতি মাসের শেষে এবং দুই সপ্তাহ-মেয়াদি কোর্সের শেষে ভাতার টাকা পাওয়া যাবে। প্রার্থীদের নিজ খরচে আবাসন ও খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে। প্রশিক্ষণ শেষে আন্তর্জাতিক মান নির্ধারণকারী সংস্থার মূল্যায়নের মাধ্যমে সনদ দেওয়া হবে। ওয়েল্ডিং বিষয়ের প্রশিক্ষণপ্রাপ্তদের মধ্য থেকে বেশি যোগ্যদের বাছাই করে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ডিএনভি-জিএল সনদ পাওয়ার ব্যয়বহুল পরীক্ষার ব্যবস্থা করবে কর্তৃপক্ষ। কাজের অনেক সুযোগ মো. সাখাওয়াত হোসেন জানান, দেশের নানা স্থানে শিপইয়ার্ড কারখানা রয়েছে। প্রশিক্ষণ শেষে কাজের সুযোগ রয়েছে এসব কারখানায়। তা ছাড়াও কাজের সুযোগ রয়েছে জেটি, বন্দর, ব্রিজ নির্মাণ বা ওয়েল্ডিং, ইলেকট্রিক, কার্পেন্টিং, পেইন্টিংয়ের কাজ হয়এমন সব স্থানে। সনদ পাওয়ার পর বিশ্বের যেকোনো দেশে এ শিল্পে কাজের সুযোগ মিলবে। একজন অদক্ষ কর্মী যেখানে মাসিক সাত থেকে আট হাজার টাকায় কাজ শুরু করে, সেখানে প্রশিক্ষণ শেষে দেশের যেকোনো কারখানায় কাজ শুরু করবে ১২ থেকে ১৪ হাজার টাকায়। পুরোপুরি দক্ষতা অর্জন করতে পারলে দুই বছরের মধ্যে দেশেই পাবে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ এবং সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইন, জাপানসহ বিশ্বের নানা দেশে এ শিল্পের দক্ষ শ্রমিকের চাহিদা অনেক। দেশভেদে একজন দক্ষ শ্রমিক শুরুতেই বেতন পেতে পারেন ন্যূনতম এক হাজার ডলার। প্রশিক্ষণের জন্য যোগাযোগ এসইআইপি ও জাহাজ নির্মাণশিল্প মালিক সমিতির তত্ত্বাবধানে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ফটিকছড়ির মোট ৯টি প্রশিক্ষণকেন্দ্রে দেওয়া হবে প্রশিক্ষণ। পরবর্তী সময় বাড়ানো হবে প্রশিক্ষণকেন্দ্রের সংখ্যা। যোগাযোগ করা যাবে স্কিলস ফর এমপ্লয়মেন্ট ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম (এসইআইপি) অর্থ বিভাগ, অর্থ মন্ত্রণালয়, এইচবিএফসি ভবন, ১/ডি আগ্রাবাদ বাণিজ্যিক এলাকা, চট্টগ্রাম-৪১০০ ঠিকানায়। প্রশিক্ষণের জন্য যোগাযোগ করতে পারেন নিচের সব ঠিকানায় খান ব্রাদার্স শিপবিল্ডিং : শান টাওয়ার, ৯ম তলা, ২৪/১, চামেলী বাগ, শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭। মোবাইল : ০১৭১৩ ৩২৯৩৬১ ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড : ৪নং কোলাগাঁও ইউনিয়ন, পটিয়া, চট্টগ্রাম। মোবাইল : ০১৭১৭ ৯৫৭০৩৩ ওয়েস্টার্ন মেরিটাইম ইনস্টিটিউট : ১২৮/এ, বিসিক শিল্প এলাকা, ব্লক-বি, সাগরিকা রোড, হালিশহর, চট্টগ্রাম। মোবাইল : ০১৮১৬ ৬০৯৪৭২ ইউসেপ : কালুরঘাট রিজিওনাল অফিস, ওয়াসা মোড়, মৌলভীবাজার, মোহরা, চান্দগাঁও, চট্টগ্রাম। ফোন : ০৩১-৬৭০৮২৯ দেশ শিপবিল্ডিং অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং : ভাটিয়ারী, চট্টগ্রাম। ফোন : ০৩১-৭১০৫২৫ ওশান ইলেকট্রিক্যাল : চরপাথরঘাটা, আজিমপাড়া, কর্ণফুলী, চট্টগ্রাম। মোবাইল : ০১৭১৩ ২৪০৯৪৪, ০১৭১১ ২৭০০২০ ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউট : দক্ষিণ হালিশহর, চট্টগ্রাম। ফোন : ০৩১৭২৭৮০৯ এফ এম সি ডকইয়ার্ড : এফএমসি হাউস, হাউস নং-৩, রোড নং-১, হিলভিউ আ/এ, চট্টগ্রাম। ফোন : ০৩১২৫৫৩৬৬১-২ এবিসি বাংলাদেশ-তুরস্ক টেকনিক্যাল স্কুল দৌলতপুর, ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম। মোবাইল : ০১৮১১ ৪৪৬৩৩৫, ০১৮২৩ ২০৬৭৬৮
--------
 
";