Time
Bangladesh Dhaka

12:21:16 PM

Australia Sydney

5:21:16 PM

Weather
Yahoo! Weather - Sydney Regional Office, AS


Current Conditions:
Find more about Weather in Sydney Regional Office, AU
Click for weather forecast
Currency Rate

Prayer Time
  • Fajr 4:41
  • Sunrise 6:14
  • Zuhr 1:09
  • Asr 4:53
  • Maghrib 8:02
  • Ishaa 9:31
Reader Number
           
 

স্থানীয় সংবাদ

নাশকতার আন্তর্জাতিক তদন্ত দাবি বিএনপির
নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি মধ্যবর্তী নির্বাচনের দাবিতে বিএনপির তিন মাসের সরকার বিরোধী আন্দোলনের সময়ে সৃষ্ট নাশকতার আন্তর্জাতিক তদন্ত চেয়েছে দলটি। বিএনপি কখনো নাশকতার সঙ্গে জড়িত ছিলো না দাবি করে বলছে, এই সরকারের অধীনে স্বাভাবিক তদন্ত হলে তদন্তকারীদের কাছ থেকে ন্যায়সঙ্গত তদন্ত আশা করা যাবে না। সেজন্য জাতিসংঘের অধীনে একটি নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান দিয়ে তদন্ত করা প্রয়োজন। শনিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই কথা বলেন দলটির মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন। তিনি বলেন, নাশকতার জন্য বিএনপি নেত্রী হুকুম দিয়েছেন বলে সরকার অভিযোগ করছে এবং এর সঙ্গে বিএনপির নেতারা যুক্ত বলে অভিযোগ করা হচ্ছে। কিন্তু বিএনপির বা তার কোনো নেতা পেট্রোল বোমা বা এই ধরনের কোনো নাশকতার সঙ্গে জড়িত নয়। এই দল নাশকতায় নয়, গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, আন্তর্জাতিক তদন্ত হলে নাশকতায় সত্যিকার অর্থে কারা জড়িত তা বেরিয়ে যাবে। তখন বিএনপি চেয়ারপারসনের কথার যথার্থতা প্রমানিত হবে- এই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিতে চাই। কিন্তু আন্তর্জাতিক তদন্ত না করে যদি বিরোধী দল বা শীর্ষ নেতৃত্বকে ধ্বংস করার চেষ্টা চালানো হয় তাহলে গণতন্ত্রের জন্য ভালো হবেনা। খালেদা-হাসিনাকে একই বৃন্তে দুটি ফুল আখ্যা দিয়ে রিপন বলেন, তাদের দুজনের একজনকে বিনাশ করা যাবেনা। একজনের বিনাশ ঘটলে, অন্যজনেরও বিনাশ ঘটবে। বিএনপির বিনাশ হলে আওয়ামী লীগেরও বিনাশ হবে আর আওয়ামী লীগের বিনাশ ঘটলে বিএনপিরও বিনাশ ঘটবে। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার ব্যাঘাত ঘটলে দেশে অশুভ শক্তির উত্থান ঘটবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের এমন বক্তব্যের ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষন করে পত্রিকার উদ্ধৃতি দিয়ে রিপন বলেন, এই উপলব্ধির জন্য তাকে স্বাগত জানাই। তবে এটা বলতে পারি, শুভ বা অশুভ নয়, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ব্যাহত হলে অনিবার্যভাবে বিকল্প শক্তির উত্থান ঘটবে। তখন কারো কিছু করার থাকবে না। বিএনপির এই নেতা বলেন, রাজনীতিবিদরা যদি রাজনীতিবিদদের সমালোচনা করেন তবে বিকল্প শক্তি এসে তাদেরকে কাঠগড়ায় দাড় করালে তখন আত্মপক্ষ সমর্থনেরও সুযোগ থাকবে না। এজন্য ১/১১ থেকে শিক্ষা নিয়ে পা ফেলার জন্য রাজনীতিবিদদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে তার স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে দেওয়ার প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটি সরকারের অভ্যন্তরীণ বিষয়। তবে কি কারণে তাকে সরিয়ে দেওয়া হলো তা জনগণের কাছে স্পষ্ট করা উচিত। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতাদের মধ্যে ব্যারিস্টার জিয়াউর রহমান, আবদুস সালাম আজাদ, অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার উপস্থিত ছিলেন।
--------
বিশ্ব ব্যাংকের কাছে পদ্মা সেতু দুর্নীতির প্রমাণ চায় কানাডার আদালত
বাংলাদেশের পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগের ব্যাপারে বিশ্ব ব্যাংকের কাছে প্রমাণ চেয়েছে কানাডার একটি আদালত। অন্টারিওর সুপিরিয়র কোর্ট অব জাস্টিসের আদালত পদ্মাসেতুতে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে বিশ্বব্যাংকের নিজস্ব তদন্তের নথিপত্র আদালতে উপস্থাপনের নির্দেশ দিয়েছে। আদালতের নির্দেশ ঠেকাতে বিশ্ব ব্যাংক কানাডার সুপ্রিম কোর্টের শরণাপন্ন হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট বিশ্ব ব্যাংকের আবেদন গ্রহণ করলেও শুনানির কোনো দিনক্ষণ ঘোষণা করেনি। অন্টারিওর সুপিরয়র কোর্ট অব জাস্টিসের বিচারক আয়ান নেইমারের আদালতে বাংলাদেশের পদ্মাসেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগের মামলা চলছে। পদ্মাসেতু নিয়ে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ ওঠার পর বাংলাদেশ সরকার বিশ্ব ব্যাংকের কাছে অভিযোগের ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট প্রমাণ চেয়েছিল। কিন্তু বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশের সেই দাবির প্রতি কর্ণপাত করেনি। এবার অন্টারিওর সুপিরিয়র কোর্ট অব জাস্টিসের আদালতের নির্দেশকে ঠেকাতে আইনি লড়াইয়ের পথ বেছে নিয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থাটি। এদিকে পদ্মাসেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্র মামলার আইনি লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়ায় পদ্মাসেতুতে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগের ব্যাপারে বিশ্ব ব্যাংকের ভূমিকা নতুন করে আলোচনায় এসেছে। আদালতে বাদী-বিবাদীর বক্তব্য এবং সুপিরিয়র কোর্ট অব জাস্টিসের বিচারকের আদেশের সূত্র ধরে চার জন তথ্যদাতা নিয়েও কৌতূহল সৃষ্টি হয়েছে। অভিযুক্ত পক্ষের আইনজীবী দাবি করেছেন, বিশ্ব ব্যাংক চারজন বেনামী তথ্যদাতার বরাতে আরসিএমপির কাছে অভিযোগ পাঠিয়েছে। আরসিএমপিও চারজন বেনামি তথ্য দাতার তথ্যের উপর নির্ভর করেই তদন্ত কাজ পরিচালনা করেছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। অপরদিকে বিচারকও তার রায়ে বলেছেন, বিশ্বব্যাংকের চার জন তথ্যদাতার দুইজনকে আদালত ইতিমধ্যে গোপনীয় তথ্যদাতা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। অর্থ্যাৎ তাদের পরিচয় বা তাদের সম্পর্কে কোনো তথ্য জানা যাবে না। উন্নয়ন সংস্থা বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশের পদ্মাসেতুতে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলে ২০১০ সালে নিজেরা তদন্ত শুরু করে। অভিযোগ সম্পর্কে নিজেদের তদন্তে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে রয়্যাল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশকে (আরসিএমপি) অনুরোধ জানায়। বিশ্ব ব্যাংক নিজেদের তদন্তে পাওয়া তথ্য ছাড়াও চারজন বেনামি তথ্যদাতার দেওয়া তথ্যাদি আরসিএমপির কাছে দেয়। এরই ভিত্তিতে আরসিএমপি কানাডিয়ান নির্মাণ প্রতিষ্ঠান এসএনসি লাভালিনের কিছু কর্মকর্তার টেলিফোন সংলাপ রেকর্ড করার অনুমতি নেয়। পরে তারা এসএনসি লাভালিনের কার্যালয়ে তল্লাশি চালায়। ২০১২ সালে মোহাম্মদ ইসমাইল এবং রমেশ শাহকে অভিযুক্ত করে। পরে কেভিন ওয়ালেস ও বাংলাদেশি কানাডিয়ান ব্যবসায়ী জুলফিকার ভূইয়াকে এই মামলায় অভিযুক্ত করা হয়। দীর্ঘ আইনি লড়াইয়ের এই পর্যায়ে এসে জুলফিকার ভূইয়ার আইনজীবী বিশ্ব ব্যাংকের তদন্তে পাওয়া তথ্যাদির নথিপত্র আদালতে উপস্থাপনের দাবি জানান। কিন্তু বিশ্ব ব্যাংক আদালতের শুনানিতে অংশ নিতে অস্বীকৃতি জানায়। বিশ্ব ব্যাংকের যুক্তি, আন্তর্জাতিক সংস্থা হিসেবে বিশ্ব ব্যাংক আইনি দায়মুক্তি ভোগ করে। ফলে সংস্থাটি তার কোনো নথিপত্র কোনো আদালতে জমা দিতে আইনগতভাবে বাধ্য নয়। কানাডার আইনও এই দায়মুক্তি দিয়েছে সংস্থাটিকে। কিন্তু অন্টারিওর সুপরিয়র কোর্ট অব জাস্টিসের বিচারক আদেশে বলেছেন, আরসিএমপির তদন্ত প্রক্রিয়ায় প্রত্যক্ষভাবে অংশগ্রহণ করে বিশ্ব ব্যাংক নিজেই তার দায়মুক্তির লংঘন ঘটিয়েছে। বিচারক বলেন, কানাডার আইন এমনিতেই পুলিশের স্পর্শকাতর সোর্সের গোপনীয়তার সুরক্ষা দেয়। বিশ্ব ব্যাংকের চারজন তথ্যদাতার মধ্যে দুইজনকে ইতিমধ্যে আদালত গোপনীয় তথ্যদাতা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। মামলার শুরুর দিকে আরসিএমপি তার তদন্তে পাওয়া দলিলপত্র আদালতে উপস্থাপন করে। অভিযুক্তদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মামলার কার্যক্রমের উপর প্রকাশনা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় সেই সব নথিপত্র গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়নি।
--------
আমার রক্ত কখনো বিশ্বাসঘাতকতা করে না : আশরাফ
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, তিনি কোনোদিন কোনো ব্যক্তিগত অর্জনের জন্য রাজনীতি করেননি। মুক্তিযুদ্ধ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্য তাঁর বাবা সৈয়দ নজরুল ইসলামের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে ঢাকা অফিসার্স ক্লাবে আজ শনিবার এক ইফতার মাহফিলে এ মন্তব্য করেন সদ্য দপ্তর হারানো মন্ত্রী আশরাফুল ইসলাম। বার্তা সংস্থা ইউএনবি জানায়, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম মাহফিলে দেওয়া বক্তব্যে বলেন, আমি কোনোদিন কোনো সুবিধার জন্য রাজনীতি করি নাই। আমার বাবাকে হত্যা করা হয়েছিল কিন্তু তিনি কোনোদিন বিশ্বাসঘাতকতা করেন নাই। এটাই আমার রক্ত। এর আগে বৃহস্পতিবার বিকেলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের (এলজিআরডি) মন্ত্রীর পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে ওই পদে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনকে দায়িত্ব দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে। ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি আগের মন্ত্রণালয়ে (প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়) অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করবেন এবং সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম দপ্তরবিহীন মন্ত্রী থাকবেন বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে। বিগত সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের টালমাটাল রাজনীতিতে দেনদরবারের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে কারামুক্ত করে ও নির্বাচন আদায় করে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী এবং সরকারের ভেতরে অপরিহার্য হয়ে ওঠেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। পরে দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সরকারের স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব অর্পিত হয় তাঁর ওপর। সর্বশেষ ২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের পর দলের ভেতরে তাঁর অবস্থান আরো সুদৃঢ় হয়।
--------
পদদলিত হয়ে ২৭ জনের মৃত্যু: আটজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা
ময়মনসিংহ পৌরসভার কাছে নূরানী জর্দা ফ্যাক্টরিতে জাকাতের কাপড় নিতে এসে পলিত হয়ে ২৭ জনের মৃত্যুর ঘটনায় ফ্যাক্টরির মালিক শামীম তালুকদারসহ আটজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। কোতয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় মামলাটি করেন। মামলার আসামিরা আগেই আটক ছিলেন। মামলার পর তাদের গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ। মামলার অন্য আসামিরা হলেন শামীম তালুকদারের ছেলে হেদায়েত তালুকদার, ফ্যাক্টরি ম্যানেজার ইকবাল হোসেন, আরমান হোসেন, আলমগীর কবীর, শামসুল হক, আব্দুল হানিফ ও তাদের গাড়ি চালক মো. পারভেজ। শুক্রবার ভোরে শহরের অতুল চক্রবর্তী রোডে নূরানী জর্দা কারখানার ফটকে মানুষ জাকাতের কাপড় নিতে জড়ো হলে ভিড়ের চাপে পদপিষ্ট হয়ে ২৭জনের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী জানান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মল্লিকা খাতুনকে প্রধান করে এক সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাকে আজকের (শুক্রবার) মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। তিনি জানান, নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের পক্ষ থেকে ১০ হাজার টাকা করে দেওয়া হবে।
--------
 
 

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বিয়ে করলেন আসিফ আলী জারদারি
এক রহস্যময়ী নারীর খপ্পরে পড়ে মানসম্মান ধুলোয় মিশে যেতে বসেছে জারদারির। পাকিস্তানিদের মুখে মুখে এই নারীর গল্প। কে এই নারী? জারদারির সঙ্গে তার কিসের সম্পর্ক? টেনে টেনে বের করা হচ্ছে হাঁড়িনাড়ির খবর। জারদারি। নতুন করে তার পরিচয় বলার দরকার নেই হয়তো। তবু বলি। পুরো নাম আসিফ আলী জারদারি। পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট। দুই বছর আগেও ক্ষমতায় ছিলেন। এই পরিচয়ের চেয়েও তিনি বেশি আলোকিত তার স্ত্রীর গরীমায়। ডটার অব ইস্ট খ্যাত পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর স্বামী জারদারি। তার শ্বশুর পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) প্রতিষ্ঠাতা ও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভুট্টো। তিনি প্রেসিডেন্টও ছিলেন। ভুট্টো পরিবারের বিশাল ঐতিহ্যের কাছে জারদারি ঠুনকোই বলা যায়। পাকিস্তানের ইতিহাসে নির্বাচিত সরকারের প্রেসিডেন্ট হিসেবে পূর্ণ মেয়াদে দায়িত্ব পালনের রেকর্ড করেন ৫৯ বছর বয়সি জারদারি। তিনি ছিলেন ১১তম প্রেসিডেন্ট। এসব দুই বছর আগের কথা। এখন তিনি রাষ্ট্রের কোনো ক্ষমতায় নেই। পিপিপির সহসভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ছেলে বিলাওয়াল ভুট্টো সভাপতি। দল গোছানোয় ব্যস্ত বাপ-বেটা। এই অবস্থায় এক নারী এসে সব উল্টোপাল্টা করে দেওয়ার উপক্রম করেছেন। জারদারি এই নারীকে নাকি বিয়ে করেছেন! ছিঃ ছিঃ পড়ে গেল দেশজুড়ে। বেনজির ভুট্টোর স্বামী বিয়ে করেছেন? তা কী হয়! হুজুগে লোকজনকে গল্পের রসদ জোগালো গণমাধ্যম। অনুসন্ধানী রিপোর্ট প্রকাশ করে জানানোর চেষ্টা করা হলো এই নারীর পরিচয়। রহস্য ঘনীভূত জারদারির নামের সঙ্গে জড়িয়ে যাওয়া রহস্যময়ী নারীর নাম তানভির জামানি। কিন্তু তার পুরো পরিচয় নিয়ে একেক গণমাধ্যমে একেক ধরনের খবর প্রকাশ করা হয়েছে। ডেইলি পাকিস্তানের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের সঙ্গে তানভির জামানির জন্মসনদের কপি প্রকাশ করা হয়েছে। এতে দেখা যাচ্ছে, তানভির জামানির জন্ম ১৯৬৩ সালে। তার বাড়ি হায়দরাবাদে। কিন্তু কোন হায়দারাবাদে? ভারতের হায়দরাবাদ নাকি পাকিস্তানি হায়দরাবাদ। এই নামে দুই দেশেই দুটি স্থান রয়েছে। ফলে বিষয়টি পরিষ্কার নয়। তবে তানভির জামানি উল্লেখ করেছেন তিনি পাকিস্তানি নাগরিক। এ ছাড়া পাকিস্তানের পাসপোর্ট নেওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে পাকিস্তানি দূতাবাসে তিনি যেসব কাগজপত্র জমা দিয়েছেন তাতে তার বাবার নাম দেওয়া হয়েছে আহমেদ আলী ইয়াহিয়া, স্বামীর নাম তেহসেন ফারুকি। বর্তমান ঠিকানা যুক্তরাষ্ট্রে হলেও স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে ব্যবহার করেছেন পাকিস্তান। নিজেকে করাচির অধিবাসী হিসেবে দাবি করেছেন। ফলে জন্মসনদের সঙ্গে তার পাসপোর্টের তথ্যের কোনো মিল নেই। গণমাধ্যমের এমন খবরে তানভির জামানিকে নিয়ে রহস্য আরো ঘনীভূত হয়েছে। তানভির জামানি তাহলে কোন দেশের বাসিন্দা? জারদারির সঙ্গে তার কোথায় পরিচয় হলো, কীভাবে হলো? পাকিস্তানি গণমাধ্যম দুনিয়া নিউজ এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করেছে। বলা হয়েছে, তানভির জামানি যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোয় থাকেন। পেশায় চিকিৎসক। তার স্বামী জাভাইদ সিদ্দিকিও একজন ডাক্তার। সম্ভবত যুক্তরাষ্ট্রেই জারদারি ও জামানির দেখা হয়। সেখান থেকেই পরিচয়, তারপর প্রণয়, শেষে পরিণয়! পাকিস্তানের কয়েকটি পত্রিকায় এমনও দাবি করা হয়েছে, তানভির জামানি ও জারদারির এক সন্তান রয়েছে। তার নাম সজল। সে মায়ের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে থাকে। কিন্তু এ তথ্যের কোনো বৈধ ভিত্তি কেউ হাজির করতে পারেনি। গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, তানভির জামানি হয়তো পিপিপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। যেমন এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানিয়েছে, পিপিপির যুক্তরাষ্ট্র শাখার প্রেসিডেন্ট তিনি। এদিকে পিপিপির পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে জানানো হয়েছে, তানভির জামানি নামে কারো সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই জারদারির। দেশে বা বিদেশে তিনি পিপিপির কোনো নেতাও নন। তানভির জামানির সঙ্গে জারদারির বিয়ে নিয়ে যা প্রচার-প্রকাশ হচ্ছে, তা একেবারেই গুজব ও ভিত্তিহীন। মিডিয়াকে এই গুজব ছড়ানো থেকে দূরে থাকার আহ্বান জানিয়েছে পিপিপি। এ ছাড়া অভিযোগ করা হয়েছে, পিপিপিকে রাজনৈতিকভাবে ঘায়েল করার জন্য কোনো পক্ষ এই অপতৎপরতায় নেমেছে। তাদেরকেও সাবধান করা হয়। পিপিপি এমন দাবি করলেও বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে টক শোতে অংশ নিয়ে তানভির জামানি জারদারির নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করে চলেছেন। রাজনৈতিক দল হিসেবে পিপিপির অবদানকেও তিনি ফুটিয়ে তুলছেন। কেন তিনি পিপিপির পক্ষে কথা বলছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তানভির জামানি বলেছেন, ভালো লাগা থেকে। কিন্তু পিপিপির কোনো পদে তিনি আছেন কি না- এমন প্রশ্নের উত্তর তিনি এড়িয়ে গেছেন। আর সবচেয়ে বড় যে প্রশ্ন, জারদারির সঙ্গে তার কিসের সম্পর্ক- এর উত্তরে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি। তার এই মৌনতা আরো বেশি রহস্য সৃষ্টি করেছে। এ ছাড়া জারদারি ও তার কোনো ছেলে আছে কি না, এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেছেন, পাকিস্তানের সব সন্তান আমার সন্তান। এসবের মানে কী? এখনো সঠিক কোনো উত্তর মেলেনি।
--------
দিল্লিতে অস্ত্রের মুখে পুলিশের ধর্ষণ
ভারতের রাজধানী দিল্লিতে পুলিশের এক এএসআইর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত ওই পুলিশকর্মী পশ্চিম দিল্লির পঞ্জাবিবাগ থানার এএসআই। তার নাম জাভির সিংহ। গত বৃহস্পতিবার দিল্লিতে তার এক বন্ধুর বাড়িতে অ্যালকোহলের নেশায় প্রভাবিত হয়ে বন্ধুর বাড়ির গৃহপরিচারিকাকে ধর্ষণ করেন তিনি। ওই গৃহপরিচারিকার বয়স ২৩ বছর। ওই গৃহকর্তী বাধা দিলে জাভির সিংহ নিজের সার্ভিস রিভলভার দেখিয়ে গৃহপরিচারিকাকে খুন করার ভয় দেখান বলে পুলিশে অভিযোগ করেছেন ওই নারী। পুরো বিষয়টি সিসিটিভি ফুটেজ থাকায় তড়িঘড়ি ওই পুলিশ কর্মীকে সাসপেন্ড করতে বাধ্য হয়েছে দিল্লি পুলিশ কমিশন। রোববার দিল্লির পুলিশ কমিশনার বি এস বাসি বলেন, অভিযুক্ত এএসআইর বিরুদ্ধে ভারতীয় সংবিধানের ৩৩১ (২) বি ধারায় দ্রুত চার্জশিট পেশ করা হবে। ওই ধর্ষণকারী কোন ভাবেই ছাড় পাবে না। এদিকে মেডিক্যাল পরীক্ষায় ধর্ষণের প্রমাণ পাওয়ার পর দিল্লির পুলিশ কমিশনার বি এস বাসির পদত্যাগ দাবি করেছেন দিল্লির ক্ষমতাসীন দল এএপি। নিজেদের সুরক্ষা করতেই দিল্লির পুলিশ কমিশনার দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানালেও পুরো ঘটনাটি থেকে রাজনৈতিক সুবিধা নিতে তৎপর হয়েছে এএপি। ধর্ষণকে কেন্দ্র করে এএপির নেতারা দাবি করেছেন, অন্যসব রাজ্যের মতো দিল্লির নির্বাচিত সরকারের হাতেই দিল্লি পুলিশের কর্তৃত্ব তুলে দিতে। তা না হলে এই ধরনের ঘটনা পুনরাবৃত্তি হতেই থাকবে বলে দলটি মনে করছে। কেজরিওয়ালের সরকার মহিলাদের নিরাপত্তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছে। কিন্তু যাদের মাধ্যমে সেই প্রতিশ্রুতি পূরণ হবে সেই দিল্লি পুলিশ কেন্দ্রের অধীনে রয়েছে। তারা দিল্লি সরকারের নির্দেশ মানতে বাধ্য নয়। ফলে সব স্তরের সমন্বয়হীনতা সৃষ্টি হচ্ছে। তাই দিল্লি পুলিশের দায়িত্ব কেজরি সরকারের হাতে তুলে দেওয়ার আবেদন জানিয়ে আবার আন্দোলনে নামার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে এএপি।
--------
আগামী বছর পাকিস্তান সফরে যাবেন মোদি
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের আমন্ত্রণে আগামী বছর সার্ক সম্মেলনে ইসলামাবাদ যেতে সম্মত হয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াইয়ের সিদ্ধান্তও নিয়েছে এই দুই দেশ। শুক্রবার রাশিয়ার উফায় ব্রিকস সম্মেলনের ফাঁকে এক বৈঠক শেষে যৌথ বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছে দুই দেশ। এ দিন প্রায় দেড় ঘণ্টা বৈঠক করেন নরেন্দ্র মোদি এবং নওয়াজ শরিফ। বৈঠকে সব ধরনের সন্ত্রাসের নিন্দা করার পাশাপাশি সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এক সঙ্গে লড়াই করার বিষয়ে দুই দেশ সম্মত হয়েছে। বৈঠকে মুম্বাই হামলার প্রসঙ্গ উঠে এসেছে। হামলার পর চার বছর কেটে গেলেও পাকিস্তান অপরাধীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় প্রথম থেকেই ক্ষুব্ধ ছিল দিল্লি। বৈঠক সূত্রের খবর, লাকভিসহ হামলায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে কড়া ব্যবস্থা নিতে নওয়াজকে অনুরোধ করেছেন মোদি। ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রের খবর সন্ত্রাস মোকাবিলায় খুব শিগগির দুই দেশের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টারা দিল্লিতে আলোচনায় বসবে। উল্লেখ্য, আগামী বছর পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত হবে সার্ক সম্মেলন। নওয়াজের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে সেই সম্মেলনে যোগ দিতে ইসলামাবাদ যেতে সম্মত হয়েছেন মোদি।
--------
ষষ্ঠ উইম্বলডন শিরোপা জিতলেন সেরেনা
উইম্বলডনে নারী এককের ফাইনাল ম্যাচ জিতে নিয়েছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেনিস তারকা সেরেনা উইলিয়ামস। স্প্যানিশ উঠতি তারকা গারবিন মুগুরুজাকে হারিয়ে ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ উইম্বলডন শিরোপা জিতে নেন ৩৩ বছর বয়সী এ তারকা। ফাইনালে জিততে খুব একটা বেগ পেতে হয়নি সেরেনাকে। উইলিয়াম পরিবারের মেয়ে ২১ বছর বয়সী টেনিসের চমক মুগুরুজাকে সরাসরি সেটে হারিয়েছেন। ৬-৪, ৬-৪ সেটে ফাইনাল ম্যাচটি জিতে নিয়েছেন সেরেনা। উইম্বলডন শুরুর আগে মুগুরুজার কথা অনেকেই ভাবেননি। তবে, ২০ নম্বর বাছাই এ স্প্যানিশ টেনিস খেলোয়াড় আগ্নিয়েস্কা রাদভানস্কার মতো তারকাকে হারিয়ে উইম্বলডনের ফাইনালে উঠেছিলেন। এ ম্যাচে জয়ের মধ্য দিয়ে ক্যারিয়ারের ২১তম গ্রান্ডস্ল্যাম জিতলেন সেরেনা উইলিয়ামস।
--------
 
";